ডোমেইন ৩০১ রিডিরেকশন – কিভাবে করলে উপকার পাবো?

এসইও, নিশ সাইট শব্দগুলোর সাথে লম্বা সময়ের পরিচিতি থাকলে ৩০১ রিডিরেকশনের কথা কম বেশি নিশ্চয়ই কানে এসেছে আপনার। কেউ কেউ এই পদ্ধতি ব্যবহার করে অনেক ভালো ফল পেয়েছে – এমন তথ্যে চোখ ছানাবড়াও হয়েছে কারও কারও।

এরপর সবাই ৩টা দলে ভাগ হয়ে গেছেন।

প্রথম দল – কিভাবে করতে হয় জানা নেই কিংবা বাজেট নেই বিধায় কখনো করে দেখেন নি। কিন্তু ইচ্ছা আছে বা ছিল।

দ্বিতীয় দল – চেষ্টা করেছেন, সফল হয়েছেন কিংবা ব্যার্থ হয়েছেন।

তৃতীয় দল – এটা নিয়ে কোন মাথাব্যাথা নেই। কাজ করলো কি করলোনা এসব নিয়ে তাঁর কোন আগ্রহ নেই। নিজের মতো করে যা করছেন তাতেই খুশি।

আপনি যে দলেরই হোক না কেন – এই আর্টিকেল এখনো পড়ছেন মানেই ধরে নিলাম এখন এই বিষয়ে জানার আগ্রহ তৈরি হচ্ছে। আপনার সেই আগ্রহকে সম্মান জানিয়েই ৩০১ রিডিরেকশনের আদ্যপান্ত জানাবো আজকে।

৩০১ রিডিরেকশন কি?

৩০১ রিডিরেক্ট

এটা মানে হলো একটা ইউআরএল অন্য একটি ইউআরএল এ পার্মেনেন্টভাবে মুভ করেছে। এটা একই সাইটের অন্য পেইজেও মুভ করতে পারে কিংবা ভিন্ন সাইটেও মুভ করতে পারে।

আমাদের এই আর্টিকেলের বিষয়বস্তু মূলত ভিন্ন সাইটের রিডিরেকশনকে নিয়েই।

এসইও জানা লোকজন অন্য সাইটের ব্যাকলিংক এবং অথোরিটির সুবিধা নেয়ার জন্যে কোন এক্সপায়ার্ড ডোমেইন কে নিজের সাইটে রিডিরেক্ট করে দেয় ৩০১ রিডিরেকশনের মাধ্যমে।

এতে করে গুগলসহ অন্য সার্চ ইঞ্জিনগুলো ভাবে ঐ এক্সপায়ার্ড ডোমেইনটি তাদের ঠিকানা পরিবর্তন করেছে। এরপর সে আগের সাইটকে যে ভ্যালু দিতো, সেই ভ্যালুটুকু রিডিরেক্ট হয়ে যাওয়া সাইটে দিয়ে দেয়। (বিষয়টি আপেক্ষিক, বুঝতে হলে পড়তে থাকুন)

৩০১ রিডিরেকশন কি কাজ করে?

উত্তর হচ্ছে হ্যাঁ এবং না দুইটাই।

কিভাবে?

৩০১ রিডিরেক্ট সঠিকভাবে কাজ করার জন্যে কিছু ক্রাইটেরিয়া আছে। এগুলো মেনে চললে কাজ করবে বা করতে পারে। আর না মেনে চললে কাজ করবেনা সাধারণত। অর্থাৎ আপনি কিভাবে বিষয়টিকে ব্যবহার করছেন সেটার উপরেই কাজ করা বা না করা অনেকাংশে নির্ভর করবে।

আমি দীর্ঘসময় কাজ করার সুবাদে এই মেথড ট্রায় করেছি অনেকবার। সুপ্রাচীনযুগে খুব ভালো ভাবেই কাজ করলেও বর্তমান সময়ে তেমন কাজ করে না। তারপরেও অনেকে এটি করে ভালো ফল পাচ্ছেন বলে বিভিন্ন কেইসস্টাডিতে উল্লেখ করেন। আবার নেগেটিভ ফলাফল পাওয়ার ব্যাপারেও জানা যায়।

তবে সার্বিকভাবে বলা যায় এটি এখন আর আগের মতো ইফেক্টিভাবে কাজ করেনা।

কিভাবে সঠিকভাবে ৩০১ রিডিরেকশন করতে হয়?

যেহেতু পুরো প্রক্রিয়াটি এক্সপায়ার্ড ডোমেইন নির্ভর, তাই প্রথমেই এক্সপায়ার্ড ডোমেইন কেনার আগে যা যা যাচাই করতে হবে, তা জানতে হবে।

জানার পর অন্তত ১০০-১৫০ ভালো লিঙ্ক আছে এবং ক্লিন হিস্টোরি সহ এমন ডোমেইন কিনতে হবে যা ইতোপূর্বে কখনো এবিউজ হয়নি। যার অ্যাংকর প্রোফাইল খুব ভালো এবং ইতোপূর্বে পেনালাইজডও হয়নি।

আর হ্যাঁ, ডোমেইন অবশ্যই নিশ রিলেভেন্ট হতে হবে।

এরকম একটা ডোমেইন কিনে হোস্ট করে কিছুদিন রাখতে হবে, এরপর কিছু আর্টিকেল দিতে হবে। গুগলে ধীরে ধীরে কিওয়ার্ড ধরা শুরু করলে বিভিন্ন কিওয়ার্ডে র‍্যাংক পাওয়া শুরু করবে। এরপর ২-৩ মাস পর .htaccess এর মাধ্যমে 301 রিডিরেক্ট করে দিতে হবে।

এই আর্টিকেলের স্টেপ ৩ ফলো করুন।

যদি এভাবে করতে পারেন, তাহলে হয়তো, হয়তো কিছু উপকার পাবেন।

কিভাবে করলে উপকার না পাওয়ার সম্ভাবনাই বেশি?

ধুপ ধাপ একটা ডোমেইন কিনলেন, রিলেভেন্ট হলো কি হলো না সেটা যাচাই না করেই। এরপর রিডিরেক্ট করে দিলেন। হতে পারে এতে উপকার কিছু হবে, তবে না হওয়ার চান্সই বেশি।

আবার অনেকে সাইট হোস্ট না করে সরাসরি ডোমেইন কন্ট্রোল প্যানেল থেকেই রিডিরেক্ট করে দেন। এটা মোটেও ভালো প্র্যাকটিস না। যেমন – গোড্যাডির মতো সাইট থেকে রিডিরেক্ট করতে চাইলে আপনাকে ভুগতে হবে।

এরকম নানাবিধ অনাকাঙ্ক্ষিত সমস্যা আসতে পারে। আবার অনেকে সাইট হোস্ট করে ওয়ার্ডপ্রেস প্লাগইন দিয়ে রিডিরেক্ট করেন। তাতে অযথাই একটা সাইট রিসোর্স নষ্ট করে আপনার।

কাজেই .htaccess এর মাধ্যমে রিডিরেক্ট করতে হবে।

কোন রিস্ক এর ব্যাপার আছে কি?

রিস্ক

জ্বি জনাব, বিশাল রিস্কের ব্যাপার আছে। আপনি যে সাইট রিডিরেক্ট করবেন সে সাইটের লিংকের অ্যাংকর টেক্সট এর প্রভাব আপনার সাইটেও পড়বে। ক্ষেত্রবিশেষে সেটা আপনার মূল সাইটের র‍্যাংকিং এর সাথে কনফ্লিক্ট করতে পারে।

এছাড়া উক্ত সাইট যদি পূর্বে পেনাল্টি খেয়ে থাকে, সেই পেনাল্টি আপনার সাইটেও আসতে পারে।

দেখা গেলো আপনার সাইট খুব ভালো করছিল, কিন্তু র‍্যান্ডম ইরিলেভেন্ট একটা সাইট রিডিরেক্ট করে দেয়ার কারণে আপনার র‍্যাংকিং এর অগ্রগতি থেমে গেলো (রিলেভেন্ট ডোমেইন রিডিরেক্ট করেও আমার এমন অভিজ্ঞতা আছে) । এরপর ভুল বুঝতে পেরে রিডিরেকশন উঠিয়ে দিলেও লিংকের ঘোস্ট ইফেক্টের কারণে দীর্ঘদিন বাটে পরে থেকে কয়েকমাস পর হয়তো ফিরে আসতে শুরু করবে।

তাহলে কি এটা করা উচিৎ নাকি বাদ দিবো?

আমার শতভাগ সাজেশন হলো – ভাই থামেন, এগুলা বাদ দেন। স্বাভাবিক প্রক্রিয়ায় কাজ করেন। অনেক ফায়দা হবে।

এই কাজ যথেষ্ট রিস্কি, পণ্ডিতের মতো ধুপধাপ ডোমেইন চেক করে রিডিরেক্ট করে দেয়া সহজ, কিন্তু সেটার কারণে যে ঝামেলা তৈরি হবে, সেটার সমাধান করা কিংবা সাইটের ক্ষতি কমানো অনেক কঠিন।

আর আহামরি আগের মতো ইফেক্টিভ না হওয়ায় না করাটাই বুদ্ধিমানের কাজ।

তারপরেও কেউ এই কাজ করে সফলতা পেয়ে থাকলে অনেক অনেক অভিনন্দন আপনাকে। ১ বছর সময়কালের বেশি সাইট টিকে থাকলে ডাবল অভিনন্দন। হাহা!

ধন্যবাদ, আবার আসবেন।

বায় দ্য ওয়ে, প্রযুক্তিগিকের মাস্টারমাইন্ড গ্রুপে না থাকলে, জয়েন করে নিন

Ariful Islam Palash
 

বর্তমানে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত। টুকটাক লেখালেখির পাশাপাশি বই পড়া, নতুন জিনিস জানার প্রতি ব্যাপক আগ্রহ রয়েছে তার। ব্যবসার প্রতি মনের টান রয়েছে, ভবিষ্যতে দেশের অন্যতম একজন ব্যবসায়ী হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে চায় নিজেকে। প্রয়োজনে ফেসবুকে পলাশ এর সাথে যোগাযোগ করতে পারেন। :)